Home ত্রিপুরা কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে শতাধিক প্রশিক্ষনার্থীকে শংসাপত্র প্রদান

কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে শতাধিক প্রশিক্ষনার্থীকে শংসাপত্র প্রদান

by admin
0 comment 95 views

প্রতিনিধি কৈলাসহর:-আজ বুধবার কৈলাসহর কানাড়া ব্যাঙ্কে ন্যাশন্যাল স্মল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন লিমিটেড এর উদ্যোগে ও ত্রিপুরা সরকারের এস সি ওয়েলফেয়ার দপ্তরের সহায়তায় স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারী প্রশিক্ষণার্তদের শংসাপত্র প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ত্রিপুরা সরকারের তপশিলি জাতি কল্যাণ দপ্তরের মন্ত্রী সুধাংশু দাস।এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কৈলাসহর পুর পরিষদের চেয়ারপারসন চপলা দেবরায়,আধিকারিক বাদল রায় এবং সমাজসেবী সিদ্ধার্থ দত্ত ও গৌরনগর পঞ্চায়েত সমিতির চেয়ারপারসন নারায়ণ সিনহা।মূলত এন এস আই সি উদ্যোগে গত ৩০শে জুন থেকে ২২শে অগাস্ট অব্দি দুটো ফেইজে ২৪৫ জনকে স্কিল ডেভেলপমেন্ট এর উপর ট্রেনিং করানো হয়েছে।আজ ১০০ জন ট্রেনিং এ অংশগ্রহণকারীদের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেওয়া হয়। প্লান্বার,কনস্ট্রাকশন ফিটার,গ্রাইন্ডার,মেইন ওয়েলডার,রিগার ইত্যাদি বিষয়ের উপর ট্রেনিং করানো হয়।বেকার যুবক-যুবতীদের কর্মসংস্থান পাইয়ে দেওয়ার জন্য এসসি ওয়েলফেয়ার দপ্তর প্রতিনিয়ত বিভিন্ন প্রকল্প সামনে নিয়ে আসছে।এই সময়ে দাঁড়িয়ে সকলকে চাকরি দেওয়া সম্ভব নয়। যেখানে সরকার যোগ্যতার নিরিখে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে সরকারি চাকরি দিচ্ছে। যোগ্যতার নিরিখে যাদের চাকরি পাওয়া সম্ভব নয় তাদেরকে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধির দিকে লক্ষ্যে জোর দেওয়া হচ্ছে।কেন্দ্রীয় প্রকল্পে মুদ্রা লোন যোজনা চালু রয়েছে।যেখানে বিনা গ্যারেন্টিতে ২ লক্ষ টাকার স্বাবলম্বন কিংবা পিএমই জিপি লোন নিতে পারছে। কিছুদিন পূর্বেও সেলাই, পার্লার থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিষয়ের উপর এস সি সম্প্রদায় ভুক্ত বেকার যুবক-যুবতীদের নিয়ে ট্রেনিং প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়েছে।মন্ত্রী সুধাংশু দাস উদ্বোধনী ভাষণে বলেন তপশিলি জাতিভুক্ত ছেলেমেয়েরা বাইরে পড়াশোনা করতে চাইলে তাদের একাডেমিক ক্যারিয়ারের জন্য সরকার বিভিন্নভাবে পাশে থাকবে। সেক্ষেত্রে বিএড,ডাক্তারী, ইঞ্জিনিয়ার থেকে শুরু করে বিভিন্ন কোর্সে যাদের আর্থিক স্বচ্ছলতা নেই তাদেরকে বছরে এক লক্ষ টাকা প্রদান করা হবে এবং স্কলারশিপ স্ট্রাকচারে অনেক ধরনের আর্থিক সহযোগিতা পাবে। কোন এস সি ছেলে যদি ওবিসি মেয়েকে বিয়ে করে তাহলে আড়াই লক্ষ টাকা পাবে,আবার কোন এসি মেয়েকে যদি কোন জেনারেল ছেলে বিয়ে করে তবেও আড়াই লক্ষ টাকা পাবে।সে ক্ষেত্রে এক বছরের মধ্যে অ্যাপ্লিকেশন জমা করতে হবে।পাশাপাশি বিএম এস অর্থাৎ বেনিফিসারি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমে এসসি পরিবারভুক্ত কোন সদস্য অসুস্থ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলে তাকেও আর্থিক সাহায্য করা হয়।সেক্ষেত্রে প্রেসক্রিপশন এবং অন্যান্য ডকুমেন্ট যদি মহকুমা লেভেলে কেউ আপলোড করে তাহলে ১৫০০শো টাকা পাবে,ডিএম লেভেলে আপলোড করা হলে ২০০০ টাকা পাবে,ডিরেক্টর লেভেল আপলোড করা হলে ৬ হাজার টাকা পাবে,সেক্রেটারি লেভেলে আপলোড করা হলে নয় হাজার টাকা পাবে, মিনিস্টার লেভেলে অনলাইনে আপলোড করা হলে পনেরো হাজার টাকা পাবে।এছাড়াও এস সি পরিবারভুক্ত ছাত্র-ছাত্রী ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণীর মধ্যে যারা পাঠরত তাদেরকে প্রি ম্যাটট্রিক স্কলারশিপ দেওয়া হচ্ছে। এই সমস্ত সরকারি যে সুবিধাগুলো রয়েছে এসএসসি পরিবার ভুক্ত সদস্যদের সেই প্রকল্প সম্পর্কে বিশদভাবে আলোচনা করেন তপশিলি জাতি কল্যাণ দপ্তরের মন্ত্রী সুধাংশু দাস।অনুষ্ঠান শেষে স্কিল ডেভেলপমেন্টের যারা প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন এই ১০০ জনকে শংসাপত্র তুলে দেওয়া হয়।

Related Post

Leave a Comment