Home ত্রিপুরা আবারো একবার যতু গৃহে আগুনে বশীভূত হয়ে মৃত্যু থেকে রক্ষা পেল স্ত্রী এবং তিন কন্যা সন্তান।

আবারো একবার যতু গৃহে আগুনে বশীভূত হয়ে মৃত্যু থেকে রক্ষা পেল স্ত্রী এবং তিন কন্যা সন্তান।

by admin
0 comment 91 views

ধর্মনগর প্রতিনিধি।
মহাভারতে যতু গৃহে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করা হয়েছিল পাণ্ডবদের , কৌরবদের দ্বারা। সেখানে একে অপরের চিরসত্য তাই মেরে ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিল শত্রুদের। কিন্তু এখানে স্বামী এতই শত্রু হয়ে গেল যে নিজের স্ত্রী এবং তিন কন্যা সন্তানকে রাতের অন্ধকারে পুড়িয়ে মারার পরিকল্পনা করেছিল। যদিও অদৃষ্টের কৃপায় রক্ষা পেয়ে যায় স্ত্রী এবং তিনটি কন্যা সন্তান। ঘটনা শনিবার ভোররাত দেড়টার পর। রাত দেড়টায় ধর্মনগরের অগ্নি নির্বাপক বাহিনীর অফিসে একটি ফোন আসে যে আল্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ৪ নং ওয়ার্ডে মূল রাস্তার পাশে একটি বাড়িতে আগুন লেগেছে। সাথে সাথে অগ্নি নির্বাপক বাহিনীর কর্মীরা প্রথমে একটি ইঞ্জিন নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। কিন্তু আগুনের প্রকো প অতিরিক্ত থাকায় আরেকটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর দুটি ইঞ্জিন এবং এলাকার গ্রামবাসীদের একান্ত প্রয়াসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। কেমন করে বা কে আগুন লাগিয়েছে তা বলতে গিয়ে বিপ্লব চক্রবর্তী এর স্ত্রী নমিতা গোস্বামী জানান এই আগুন তার স্বামী বিপ্লব চক্রবর্তী ই লাগিয়েছে। রাত ১১ টায় নমিতা গোস্বামী তার তিন কন্যা সন্তানকে নিয়ে খাওয়া-দাওয়া শেষ করে ঘুমাতে যায়। আর কিছু বলতে পারেনি। পরবর্তী সময় আগুনের প্রকোপে এবং মানুষের চিৎকারে তার ঘুম ভাঙ্গে। কোনক্রমে তার তিনটি কন্যা সন্তানকে আগুনের প্রকোপ থেকে রক্ষা করে। বাকি সব আগুনে জ্বলে ধুলিস্যাৎ হয়ে যায়। নমিতা জানায় তার স্বামী বিপ্লব চক্রবর্তী আগেও কয়েকবার আগুন লাগানোর প্রচেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। এলাকার প্রবীণ ব্যক্তিত্ব সিন্ধু চক্রবর্তীকে সাথে নিয়ে নমিতা ধর্মনগর থানায় বিপ্লবের বিরুদ্ধে মামলা ও দায়ের করেছে। বিপ্লব তাদের সাথে থাকেনা। প্রায় ই নেশাগ্রস্থ অবস্থায় থাকে এবং তাদেরকে নির্যাতন করে মেরে ফেলার চেষ্টা করে। অসহায় নমিতা মানুষের বাড়িতে বাড়িতে কাজ করে তিনটি কন্যা সন্তানকে লালন-পালন করছে এবং পড়াশোনা করিয়ে যাচ্ছে। অগ্নি নির্বাপক বাহিনীর কথা অনুযায়ী এই আগুন পেট্রোল ঢেলে লাগানো হয়েছে। বিপ্লব সম্ভবত তার স্ত্রী নমিতা এবং তিনটি কন্যা সন্তান কে একেবারে মেরে ফেলে চিরতরে মুক্তি পেতে চেয়েছিল। এলাকার যুবকরা এবং প্রবীণ ব্যক্তিত্বরা আগে বেশ কয়েকবার বিপ্লবকে বুঝিয়ে তাদের ঝামেলার নিষ্পত্তি করিয়ে দিয়েছিল। কিন্তু বাস্তবে কিছুই লাভ হয়নি। কি নির্মম কাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেল স্ত্রী নমিতা এবং তিনটি কন্যা সন্তান। যেখানে বাবারা তাদের সর্বস্ব বিলিয়ে দেয় সন্তানদের জন্য সেখানে এই পাষান্ড বাবা মেরে ফেলতে চেয়েছে একসাথে তিনটি কন্যা সন্তানকে। যা পশু সমাজকে ও হার মানিয়ে দেওয়ার মত ঘটনা।

Related Post

Leave a Comment