Home ত্রিপুরা গ্রামবাসীদের ঠেলায় কাদায় আটকে পড়া জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত গাড়ী পারহলো রাস্তা।

গ্রামবাসীদের ঠেলায় কাদায় আটকে পড়া জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত গাড়ী পারহলো রাস্তা।

by admin
0 comment 56 views

ত্রিপুরায় দিকে দিকে ফুঁটো হচ্ছে ডবল ইঞ্জিনের উন্নয়নের ফানুস। কাদায় আটকে গেলো সরকারের রাস্তাঘাটের উন্নয়নের গল্প। ডবল ইঞ্জিন নয়, গ্রামবাসীদের ঠেলায় কাদায় আটকে পড়া জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত গাড়ী পারহলো রাস্তা। মানুষের প্রশ্ন, এটাইকি তবে ডবল ইঞ্জিনের উন্নয়নের আসল সোপান?  জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত গাড়ী আটকে পড়ছে কর্দমাক্ত রাস্তায়। এলাকার মানুষ ঠেলে পার করে দিচ্ছেন সরকারী দপ্তরের গাড়ী। হ্যাঁ, এটাই এখন ত্রিপুরার গ্রাম পাহাড়ে ডবল ইঞ্জিন সরকারের উন্নয়নের সোপান। এই দৃশ্য ত্রিপুরার মন্ত্রী সুধাংশু দাসের নির্বাচনী কেন্দ্র ঊনকোটি জেলার ফটিকরায় বিধানসভাধীন পশ্চিম মশাউলি গ্রামের। পশ্চিম মশাউলি একনম্বর ওয়ার্ড থেকে ঘোষ পট্টী পর্যন্ত যাবার রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে এমনই বেহাল দশায় পরিনত বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। ইটসলিং ভেঙে বৃষ্টির মরসুমে প্রতিবছরই জলকাদায় একাকার হচ্ছে রাস্তাটি। কিন্তু কারোরই রাস্তার হাল ফেরানোর উদ্যোগ নেই বলেই অভিযোগ। রাস্তার এই বেহাল দশায় প্রায় প্রতিদিন রাস্তা পেরোতে গিয়ে সেখানে আটকে পরছে যানবাহন। এমনকি জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত বিদ্যুৎ নিগমের গাড়ী, স্বাস্থ্যকর্মীদের গাড়ী পর্যন্ত কাদা থেকে ঠেলে তুলেদিতে হচ্ছে স্থানীয়দেরকে। ডবল ইঞ্জিনের গল্পে বাস্তবে রাস্তায় কিভাবে ফেঁসেছে গাড়ীর ইঞ্জিন,দেখুন সেই ছবি।রাজ্যের শাসক নেতামন্ত্রীদের মুখে ডবল ইঞ্জিন সরকারের গালভরা উন্নয়নের গল্প থাকলেও সেই ডাবল ইঞ্জিনের ট্রাবলে দিকে দিকে রিতিমতো হাপিয়ে উঠেছেন মানুষ বলেই অভিযোগ। মশাউলি গ্রামের এই সমস্যা দীর্ঘ বেশ কয়েকবছরের। গ্রামের একটি স্কুল, উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে যাবার একমাত্র রাস্তা এটি। ফলে স্কুল পড়ুয়া থেকে রোগী এমনকি স্থানীয়দেরও এই রাস্তায় যাতায়াত ইদানিং কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। এবিষয়ে স্থানীয় পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষ থেকে জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও কিছুই কাজ হচ্ছেনা বলেই অভিযোগ এলাকার মানুষের। রাস্তার বেহাল দশায় ক্ষোভে ফুঁসছেন গ্রামের বাসিন্দারা।ত্রিপুরায় নেতামন্ত্রীদের মুখে ডবল ইঞ্জিনের উন্নয়নের হাঁকডাক থাকলেও বাস্ততবে আসলেই যে গল্পের গরু গাছে চড়ছে তা বারবারই উঠে আসছে গ্রামপাহাড়ের এসব জীবন্ত সমস্যা থেকে।

Related Post

Leave a Comment